Akhi almgir xxx

Rated 3.99/5 based on 997 customer reviews

তে পড়ত। সেকেন্ড ইয়ারে। পরে এফ.সি.পি.এস’ও শেষ করছে। এখন সুন্দর ঘরে বসে আছে। সে নাকি টায়ার্ড হয়ে গেছে। ডাক্তারি করতে পেইন লাগে। এই মেয়েটাকে যখন আমি প্রথম দেখেছিলাম তখনই আমার মনে হয়েছিল মেয়েটার মাথায় কিছু না কিছু ছিট তো আছেই। আর এখনও জীবনের প্রতিটা ডিসিশনে সেটার পরিচয় খুব ভাল ভাবেই দিচ্ছে। তবুও কেন জানি মেয়েটাকে ভাল লাগে। হয়ত মানুষ ভালো এই জন্য।ফোন রিসিভ করতেই সেই জ্বালাময়ী কণ্ঠ কানে এল।–হ্যালো,রিশাত,কেমন আছো? –আমি ভীষণ ভালো আছি। তার উপর তোমার জন্য একটা, না না, অনেকগুলা সারপ্রাইজ আছে, তাই আরও বেশি বেশি ভালো।–কি সারপ্রাইজ? –না,ভার্সিটি বন্ধ হয়ে গেছে। আগামী সাত দিন বন্ধ থাকবে।–“তাই নাকি?–তুমি এক্ষন আমার বাসায় আসো, আসলেই টের পাবা।–কি টের পাবো, সারপ্রাইজ? ” সপ্না ভীষণ খুশি হয়ে বলল।সপ্নার এটা আরও একটা সমস্যা। যখন খুশি হয় তখন সেটা অনেক বেশি করে প্রকাশ করে, আবার যখন কষ্ট পায় সেটা যত বড়ই হোক না কেন মতেই কষ্ট বুঝতে দেয় না অন্যকে। এজন্য আমি কয়েকবার মিস গাইডও হয়েছি।–হ্যাঁ, তাই ভাবতেছি Ctg যামু গা। আম্মুর সাথে দেখা করতে।–খুবই ভাল, যাও দেখা করে আসো আম্মুর সাথে। তবে আমার একটা রিকোয়েস্ট আছে।–কি? –মানে কিছু না। তুমি সোমবারের টিকেট কাট। বাকিটুকু পরে বুঝাইতেছি।–বাসায় আংকেল আছে না?”আমি হঠাৎ করে টের পেলাম আমি কথা বলতে চাচ্ছি কিন্তু বলতে পারছি না। আমার গলা যেন কে চেপে ধরেছে। সেটাই মনে হয় বাকরুদ্ধতা। বাকরুদ্ধ আমি অস্ফুট স্বরে বললাম, “অপূর্ব…….।”ও আমার সামনে কিছুক্ষণ পোজ দিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল। আমার সময়,ঘড়ি,টাইম কিছুই মাথায় ঢুকছিল না। আমি শুধুই তাকিয়ে ছিলাম অবাক বিস্ময় নিয়ে। আমার চেনা সপ্নাকে অচেনা ভাবে দেখছিলাম। ওর এত্ত রূপ আমার চোখে এর আগে কখনও ধরা পড়ে নাই।আমি কিছুই বললাম না। ও আমার বাড়াতে তেল মাখিয়ে খেঁচতে লাগলো। কেমন করে যেন খেঁচতেছিল। আমি কখনও Hand job এ এত মজা পাই নাই। ওর চোখ মুখেও একটা কামার্ত ভাব ছিল। তারপর আমি চোখ বন্ধ করে পুরো ব্যাপারটা অনুভব করতে লাগলাম। একটু পর ও বলল, “Would you like to give your dick into my mouth?”আমি হঠাৎ করে টের পেলাম আমি কথা বলতে চাচ্ছি কিন্তু বলতে পারছি না। আমার গলা যেন কে চেপে ধরেছে। সেটাই মনে হয় বাকরুদ্ধতা। বাকরুদ্ধ আমি অস্ফুট স্বরে বললাম, “অপূর্ব…….।”ও আমার সামনে কিছুক্ষণ পোজ দিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল। আমার সময়,ঘড়ি,টাইম কিছুই মাথায় ঢুকছিল না। আমি শুধুই তাকিয়ে ছিলাম অবাক বিস্ময় নিয়ে। আমার চেনা সপ্নাকে অচেনা ভাবে দেখছিলাম। ওর এত্ত রূপ আমার চোখে এর আগে কখনও ধরা পড়ে নাই।পরে জেনেছিলাম ও নাকি সেই রাতে পাক্কা চল্লিশ মিনিট আমাকে পোজ দিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল। আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম আমাকে ডাক দেয় নাই কেন। ও বলেছিল আমার চেহারা দেখে নাকি ওর মায়া হচ্ছিল। আমাকে দেখে বলে মনে হচ্ছিল আমি একটা Innocent Child । ওরে চল্লিশ মিনিট দাঁড় করায় রাখার জন্য আমি পরে অবশ্য স্যরিও বলেছিলাম।তারপর ও আমার চোখের দিকে তাকিয়ে আদুরে কণ্ঠে বলল, “স্পর্শ করবে না আমায়?” আমি বলতে চাচ্ছিলাম করবো না। কিন্তু ও যেন আমায় সম্মোহিত করে ফেলেছিল। আমার মুখ দিয়ে বের হয়ে গেল, “করবো।” ও একটা হালকা মিউজিক ছেড়ে দিয়ে আমার কাছে এসে হাত ধরে দাঁড় করিয়ে দিল। আমি উঠে দাঁড়ালাম। ওর শরীরের কাছাকাছি হতেই ওর গা থেকে বডি স্প্রের একটা হালকা সুন্দর স্মেল নাকে আসলো। তারপর কিছুক্ষণ আমরা Ballroom Dance করলাম। সাধারণত এটা করে স্যুট,টাই আর লং স্কাট পইরা। আমরা সে রাতে করলাম সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে। অদ্ভুত মজা পেলাম। ডান্স করার সময় ওর শরীরে হাত দিয়ে অনুভব করলাম ওর স্কিনটা অনেক মসৃণ। পুরো শরীরেই একটা পরিচর্যার ছাপ ছিল। প্রায় আধা ঘণ্টা পরে আমি ওকে কোলে নিয়ে বিছানায় শুইয়ে দিলাম। তারপর আমি ওর পাশে শুলাম। তখনও মিউজিকটা বাজছিল। আমি শুয়ে শুয়ে সেটা শুনছিলাম। সপ্না একটু পর গড়িয়ে এসে আমার উপর উঠল। আমি ওকে দুহাতে জড়িয়ে ধরে ওর কপালে একটা চুমু দিলাম। আমার এখনও মনে পড়ে ওকে আমি খুব আলতো করে ধরেছিলাম। আমার কেন জানি মনে হচ্ছিল একটু চাপ খেলেই আমার এই মানুষরূপী পুতুলটা ভেঙে চুরচুর হয়ে যাবে। আমি ওকে চুমু দেবার পর সপ্নাও আমাকে চুমু দিল। এরপর দীর্ঘক্ষন আমরা লিপকিস করলাম একজন আরেকজনকে। ওর দুধ গুলো আমার খুউব ধরতে ইচ্ছা করছিল। কিন্তু মন সায় দিচ্ছিলো না। মনে হচ্ছিল ও মাইন্ড করতে পারে। তাই লিপকিসেই নিজেকে কষ্ট করে বেঁধে রাখলাম। যত না করছিলাম তার থেকে বেশি পাচ্ছিলাম। সপ্না নিজেই একটু পর আমার ডান হাতটা নিয়ে ওর দুধে ধরিয়ে দিল। আমি ওর দুধে হাত দিয়েই আঁতকে উঠলাম। এত্ত নরম শরীরের কোন অংশ হতে পারে আমার ধারনা ছিল না। আমি প্রথমে ওর দুধ গুলোতে হাত বুলাচ্ছিলাম। তারপর আস্তে আস্তে টিপতে লাগলাম। কিছুক্ষণ পর সপ্না আমার উপর থেকে নেমে গেল। আমি তখন ওর উপর উঠবো কিনা ভাবতে লাগলাম। স্বাভাবিক ভাবেই এর আগে কোন মেয়ের উপর উঠার Experience ছিল না। তাই ও ব্যাথা পাবে মনে করছিলাম। কিন্তু পরে দেখলাম ও খুব সুন্দর করে আমাকে absorb করে নিল। আমি ওর ঠোঁটে একটা কিস করলাম। সপ্নাও সাড়া দিল। সপ্নার লিপকিস মনে হয় অনেক প্রিয়। এটা অবশ্য ও আমার কাছে মুখে স্বীকার করে নাই। তবুও এখনও দেখি ও এই লিপকিস কে অনেক বেশি Priority দেয়। Even অফিসে যাবার আগেও একবার আর অফিস থেকে এসেও একবার কিস দিতেই হয়। আসলে দিতে হয়,না বলে,বলা উচিত ও আমার কাছ থেকে আদায় করে নেয়। আমার অবশ্য এটাতে সমস্যা নাই। ও যেটাতে মজা পাচ্ছে সেটা করতে আমার কি প্রবলেম?

”আমি ওকে কি উত্তর দিব বুজতেছিলাম। কারণ আমার মনে হচ্ছিল হাত দিয়েই বেশি মজা লাগবে। মুখ দিয়ে চুষলে মাল বের হতে চাইলেও ফেলতে পারবো না। এই কথা গুলা আমি ওকে বললাম। ও সাথে সাথে আমার দ্বিধা ভেঙে দিয়ে বলল, “কোন সমস্যা নাই। মাল বের হলে আমার মুখে ফেলে দিয়ো। মাইন্ড করবো না। তুমি শুধু একটু খাটে পা ঝুলিয়ে শোও।” আমি ওর কথা মত খাটের দৈর্ঘ্য বরাবর হাঁটু থেকে পা ঝুলিয়ে শুয়ে রইলাম। ও নিচে হাঁটু গেড়ে আমার বাড়া চুষছিল। সত্যি বলছি আমার তখন মনে হচ্ছিল দুনিয়াতে আমার আর কিছুই দরকার নাই। যা পাবার তা আমি পেয়ে গেছি। অ-নে-ক মজা পাচ্ছিলাম। ও প্রায় পনেরো মিনিট ধরে ছোট্ট রিশাতকে নিয়ে খেলছিল। আমার মালও প্রায় বের হয়ে এসেছিল। কিছুক্ষণ পর টের পেলাম আমার বাড়া প্রায় ফেটে যাচ্ছে। আর ওদিকে ও চুষেই যাচ্ছিলো। মাল না ফেলা ছাড়া কোন উপায় ছিল না। যদিও ও অভয় দিয়েছিল কিন্তু আমার কাছে সংকোচ লাগছিল ওর মুখে মাল ফেলতে। একটু পর অবশ্য এসব চিন্তার অবকাশও পেলাম না। মাল বের হয়ে গেল। ও মাল পড়ার পরও কিছুক্ষণ চুষলো। সব মাল বের হয়ে যাবার পর ও ওয়াশরুমে গিয়ে কুলি করে আসলো। আমার খুব ক্লান্ত লাগছিল। বিয়ের আগে মাল ফেললে আমার মাঝে কেমন যেন একটা ক্লান্তি আর অপরাধবোধ কাজ করত। এটার কারণ আমি জানি না। তবুও লাগত। কিন্তু সেইবার আমার অপরাধবোধটা ছিল না।ও এসে বলল, “তুমি আজকে অনেক Excited ছিলা,না?”আমি হেসে বললাম, “মাল ছাড়ার পর এটা একটু ছোট হয়ে যায়।”ও হাসতে হাসতে বলল, “খুবই মজার জিনিস তো। একটু আগেও আমি দেখলাম প্রায় ছয় ইঞ্চির একটা এত বড় একটা জিনিস। সেটা এখন মাত্র আড়াই ইঞ্চি হয়ে গেল?” ও যেন ভীষণ মজার একটা জিনিস দেখছে এমনভাবে ও ছোট্ট রিশাতকে দেখছিল। আমি কিছুই বলছিলাম না। চুপচাপ বসে ওর কাণ্ডকারখানা দেখছিলাম।একটু পর বলল, “এটা আবার কখন মাল ফেলতে পারবে? –তাহলেও খুব বেশি লাভ হবে না। চার পাঁচ মিনিট এদিক সেদিক হতে পারে। পুরা টাংকি খালি।–তোমার স্পার্ম কাউন্ট কিন্তু ভালো। অনেক বেড়িয়েছে।–তাই নাকি?সেদিন সকালে আমার ঘুম ভেঙ্গেছিল সকাল সাড়ে আটটায়। আমার যতটুকু মনে পড়ে হলের জীবনে আমি কোনদিন একটু শান্তি মত ঘুমাইতে পারি নাই। ন’টার বেশি তো কোন দিনই না। ঐদিন এমনিতেই বাহিরে কি একটা বিষয় নিয়ে পোলাপাইন বেশ হাউকাউ লাগাইছিল। তারপর উপর রুমের দরজাটাও খোলা ছিল। আবার এদিকে ছিল রুমের ছোট ভাইটার অত্যাচার। ও তখন ফার্স্ট ইয়ারে ছিল । যতক্ষণ সে রুমে থাকত ততক্ষণ ঘটঘট করে পড়ত । পুরা রুম ফাটায় ফালাইত। কত বুঝাইছি ওরে, “ভাইয়া, একটু আস্তে আস্তে পড়।” কিন্তু কার কথা কে শুনে। ওর নাকি জোরে জোরে না পড়লে পড়া মুখস্ত হয় না। আরে ভাই আমরা কি পড়ি নাই?এত্ত আওয়াজ তো করি নাই। এই কথাগুলা ওর কানের পাশ দিয়াও যাইতো না। মাঝে মাঝে ইচ্ছা হইতো তুইলা একটা আছাড় দেই। কিন্তু পরে আর দেয়ার দরকার হয় নাই। কারণ ওর ঘটঘটানি বন্ধ করার একাটা সুন্দর উপায় বের করেছিলাম।আমি বিছানায় শোয়া থেকে উঠে বসলাম । আমাকে উঠতে দেখে,শাওন,আমার রুমের সেই ছোট ভাই বলল, “ ভাইয়া,ঘুম ভাঙল?

Leave a Reply